fbpx
+8801676386302 info@backenddigital.com
সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর গুলো কি কি জানতে চাই

সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর গুলো কি কি জানতে চাই

যেসব বিষয় অনুসরণ করে একটি ওয়েবসাইট সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পেজে অর্থাৎ সেরা দশে স্থান পায় তাই হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর। আমরা যখন কোন একটা কিওয়ার্ড দিয়ে গুগলে বা অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করি তখন প্রথম পেজেই ১০ টি রেজাল্ট প্রদর্শিত হয়। কিন্তু ভেবে দেখেছেন কি, কেন সার্চ ইঞ্জিন মাত্র ১০ রেজাল্ট প্রথম পেজে নিয়ে আসলো? কেন অন্যান্য ওয়েবসাইট প্রথম পেজে আসার সুযোগ পায়নি? এই প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে আপনাকে জানতে হবে সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর। আমরা আজকে আলোচনা করবো সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর নিয়ে।  সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাংকিং ফ্যাক্টর গুলো নিম্নরূপ-

১। কন্টেন্ট ফ্যাক্টর

২। ডোমেইন ফ্যাক্টর

৩। ওয়েবসাইট ফ্যাক্টর

৪। অন পেজ এসইও ফ্যাক্টর 

৬। ব্যাকলিংকস ফ্যাক্টর

কন্টেন্ট ফ্যাক্টর

গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট মে ২০২০ এ তাদের র‍্যাংকিং ফ্যাক্টরের মধ্যে কন্টেন্টকে এক নম্বরে রেখেছে। এক্ষেত্রে গুগল ৪ টি ধাপে কন্টেন্টের মান তুলে ধরতে গুরুত্বারোপ করেছে, সেগুলো হলো-  

১। কনটেন্টের মান

–পর্যাপ্ত তথ্য, রিসার্চ, রিপোর্ট ও বিশ্লেষন নিয়ে কন্টেন্ট তৈরি করতে হবে।

–সম্পূর্ণ ও বিশদভাবে বিষয়বস্তু আর্টিকেলে ফুটিয়ে তুলতে হবে। অর্থাৎ ভিজিটররা যা সার্চ করছে তাকি পুরোপুরি পেয়েছে কিনা নিশ্চিত করতে হবে।

–বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে তথ্য নিয়ে কন্টেন্ট লিখে বা আর্টিকেল পুনলিখন (Rewrite) করার চেয়ে নতুন তথ্যবহুল কন্টেন্ট অবশ্যই বেশি ফলপ্রসূ।

– আর্টিকেলের টাইটেল ও মেটা ডেসক্রিপশনের মাধ্যমে পুরো আর্টিকেলের সারাংশ তুলে ধরতে হবে।  

– আর্টিকেলের টাইটেল বা মেটা ডেসক্রিপশন বিষয়বস্তুর সাথে মিল রেখে লিখতে হবে। অতিরঞ্জন বা হটকারি টাইটেল সার্চ রেজাল্টে র‍্যাংক পাবে না।

– আপনার পেজ বা পোস্ট কি মানুষ বুকমার্ক বা শেয়ার করতে ইচ্ছুক কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে। 

–বিভিন্ন এনসাইক্লোপিডিয়া বা বইয়ের মধ্যে আপনার ওয়েবসাইটের তথ্য কি রেফারেন্সের পাওয়ার যোগ্যতা রাখে? যদি উত্তর হ্যাঁ হয় তবে ওয়েবসাইট র‍্যাংক করার সমূহ সম্ভবনা আছে। 

২। কন্টেন্ট লেখকের দক্ষতা

– এমন কন্টেন্ট লিখতে হবে যা মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য ও যা সুস্পষ্ট তথ্য প্রমাণ সহকারে লিখা হয়।

–যে বিষয়ে কন্টেন্ট লেখক লিখেছে সে বিষয়ে তিনি ভাল জ্ঞান রাখেন কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে।

– ওয়েসবাইটের যেকোন কন্টেন্ট প্রতারণা, মিথ্যা বা ভুল তথ্য থেকে মুক্ত হতে হবে।

৩। কন্টেন্ট উপস্থাপনা

– ওয়েবসাইটের আর্টিকেলগুলোকে বানানগত বা ব্যকরণগত যথাসম্ভব শুদ্ধ হতে হবে।

– আর্টিকেলগুলোকে পরিকল্পিতভাবে সাজিয়ে লিখতে হবে তাড়াহুড়ো করে লিখা ঠিক নয়।

– কন্টেন্টে অতিরিক্ত বিজ্ঞাপন থাকলে মানুষ পড়তে বিরক্তবোধ করে। সুতরাং সহনীয় মাত্রায় ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেওয়া উচিত।

–সকল ডিভাইসে (মোবাইল, ট্যাব) ইত্যাদিতে সুন্দরভাবে যেন কন্টেন্ট প্রকাশিত হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

৪। কন্টেন্টের তুলনা

– বলার অপেক্ষা রাখে না অন্যান্য পেজের তুলনায় করলে অধিক মুল্যবান কন্টেন্ট লিখতে হবে র‍্যাংক পেতে হলে।

–ভিজিটরের প্রয়োজন পূর্ণ করে কন্টেন্ট লিখা উচিত সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি করা সেটি পরের বিষয়।

যে চারটি পয়েন্ট আমরা এতক্ষন আলোচনা করলাম তা ছিল গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট যা মে ২০২০ এ প্রকাশিত যা অবশ্যই একটি গুরুত্বপূর্ণ সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাংকিং ফ্যাক্টর। এই পয়েন্টগুলো আলোচনা করে আমরা বুঝতে পারছি গুগল র‍্যাংকিং এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে কন্টেন্টকে। 

ইএটি ক্রাইটেরিয়া (EAT Criteria)

ইএটি ক্রাইটেরিয়া (EAT Criteria) এখন সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর এ ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করছে। EAT এর বিশদরূপ হচ্ছে

E = Expertise

A = Authoritativeness and

T = Trustworthiness.

Expertise (দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা)

Expertise (দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা) বলতে বুঝানো হচ্ছে যে ওয়েবসাইট থেকে কন্টেন্ট লিখা হচ্ছে তাদের উক্ত বিষয়ের উপর গভীর দক্ষতা বা অভিজ্ঞতা রয়েছে কিনা। অর্থাৎ সামগ্রিক আলোচ্য বিষয়ের উপর তাদের গভীর জ্ঞান আছে কিনা।     

Authoritativeness (প্রামান্যতা)

Authoritativeness (প্রামান্যতা) দ্বারা বুঝানো হচ্ছে আপনি যে বিষয়বস্তুর উপর ওয়েবসাইট তৈরি করেছেন তার উপর আপনার কর্তৃত্ব বা প্রামান্যতা কতটুকু আছে। আপনি একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর দক্ষতা রাখেন তা প্রমান হয় যখন বড় ওয়েবসাইট (যার বেশি পিএ/ডিএ আছে) আপনাকে এক্সটারনাল লিংক দেয় বা রেফারেন্স দেয় । এটা তখন প্রমান হয় আপনার ওয়েসবাইট ঐ বিষয়বস্তুর মূল তথ্যদাতা।       

Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা)

একটি  ওয়েবসাইট যখন তথ্য প্রদান বা লেনদেনের বিশ্বাসযোগ্য হবে সেটাকে Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা) বলা হয়। আর্থিক লেনদেন যেসব ওয়েবসাইটে হয় তাদের জন্য Trustworthiness সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে ই-কমার্স ওয়েবসাইটের জন্য Trustworthiness সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কোন ওয়েবসাইটে  SSL certificate সংযুক্ত থাকা মানে ওয়েবসাইটের Trustworthiness এর প্রমাণ বহন করে।     

ডোমেইন ফ্যাক্টর

১।ডোমাইনের বয়স

ডোমেইন বয়স একটি কম গুরুত্বপূর্ণ সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর। সাধারণত কোন ডোমেইনের বয়স বেশি থাকা মানেই সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক পাবে ব্যাপারটি এমন নয়, তবে দুটি ডোমেইনের কন্টেন্ট যদি একই মানের হয় তবে যে ডোমেইনের বয়স বেশি সেটি সার্চ রেজাল্টে অগ্রাধিকার পাবে।  

২। টপ লেভেল ডোমেইন

টপ লেভেল ডোমেইন (TLD) সাধারণত সেকেন্ড লেভেল ডোমেইন (SLD) থেকে র‍্যাংক পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পায় । সুতরাং র‍্যাংকিং এ ভালো রেজাল্ট করতে হলে টপ লেভেল ডোমেইন নিয়ে কাজ করা উচিত। সাধারণত টপ লেভেল ডোমেইন হলো-

•          .com

•          .net

•          .org

•          .info

•          .co

•          .io

•          .me

•          .xyz

এর মধ্যে ডট কম ডোমেইনকে বলা হয় কিং ডোমেইন যা টপ লেভেল ডোমেইনের মধ্যে প্রথমে অবস্থান করে।

৩। এক্সাক্ট ম্যাচ ডোমেইন

এক্সাক্ট ম্যাচ ডোমেইন হচ্ছে সেই ডোমেইনগুলো যেগুলো প্রধান কিওয়ার্ডের সাথে মিলে যায়। যেমন আপনি যদি অনলাইনে বাসের টিকেট বিক্রি করেন এবং আপনার ডোমেইন হয় busticket.com তাহলে এটি হচ্ছে এক্স্যাক্ট ম্যাচ ডোমেইন। এখানে আপনার কিওয়ার্ড ও ডোমেইন একসাথে মিলে গেছে। এক্স্যাক্ট ম্যাচ ডোমেইনে আপনি সার্চ রেজাল্টে প্রাধান্য পাবেন।

৪। পাবলিক WHOIS vs. প্রাইভেট WHOIS  

কোন ডোমেইন রেজিস্ট্রেটরের নাম জানা যাবে যদি WHOIS ডাটা পাবলিক করে রাখা হয়, কিন্তু WHOIS ডাটা প্রাইভেট করে রাখা মানে আপনি কিছু লুকাতে চাচ্ছেন যা কিনা সার্চ ইঞ্জিন একটি নেগেটিভ সিগন্যাল হিসেবে নেয়। সুতরাং, WHOIS ডাটা পাবলিক করে রাখাই বেস্ট প্যাকটিস।

৫। স্পামার WhoIs Owner  

একটি হোস্টিং এর আন্ডারে একাধিক ডোমেইন থাকতে পারে। যদি সার্চ ইঞ্জিনের কাছে একটি ডোমেইন স্পামার হিসেবে সাব্যস্ত হয় তবে সেই ব্যক্তির হোস্টিং এর আন্ডারে থাকা বাকি ডোমেইন গুলোতেও সেটি সমান প্রভাব ফেলে।  

৬। কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন

লোকাল এসইও বা স্থানীয় সার্চ রেজাল্টে কিছু অগ্রাধিকার পায় কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন। তবে গ্লোবাল টার্গেটে কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন ততটা কার্যকর নয়। কান্ট্রি কোড টপ লেভেল ডোমেইন এর উদাহরণ হচ্ছে .com.bd (বাংলাদেশ), com.ac (অস্ট্রেলিয়া), com.us (ইউএসএ) ইত্যাদি।     

অন পেজ এসইও ফ্যাক্টর

১। টাইটেল ট্যাগে কিওয়ার্ড রাখা

টাইটেল ট্যাগের মধ্যে যদি ফোকাস কিওয়ার্ড থাকে তবে তা র‍্যাংক করার সম্ভবনা তুলনামূলক বেশি হয়। তাছাড়াও MOZ এবং Backlinko এর দুটি পৃথক গবেষণায় দেখানো হয়েছে, যেসব টাইটেল ট্যাগের প্রথম অংশে কিওয়ার্ড থাকে সেসব ওয়েবসাইট র‍্যাংক করার ক্ষেত্রে অগ্রগামী থাকে।

২। মেটা ডেসক্রিপশনে কিওয়ার্ড রাখা  

মেটা ডেসক্রিপশনে কিওয়ার্ড থাকা মানে সেই আর্টিকেল কিওয়ার্ডের সাথে প্রাসঙ্গিক বলে সাব্যস্ত হয়। যেকোন আর্টিকেলের সারাংশ অল্প কথায় তুলে ধরে মেটা ডেসক্রিপশন, যদি মেটা ডেসক্রিপশনের মধ্যে কিওয়ার্ড থাকে তবে তবে সেই আর্টিকেল সার্চ রেজাল্টে অধিকতর প্রকাশিত হওয়ার সম্ভবনা থাকে।

৩। ইউআরএলে কিওয়ার্ড রাখা

ইউআরএলে কিওয়ার্ড রাখা আরেকটি প্রাসঙ্গিক সিগন্যাল হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ফলে সার্চ রেজাল্টে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

৪। কন্টেন্ট অপটিমাইজেশন  

অন পেজ এসইও এর একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো কন্টেন্ট অপটিমাইজ করা। কন্টেন্ট অপটিমাইজেশন এর ধাপগুলো নিম্নরূপ –

•          কন্টেন্টে পর্যাপ্ত সংখ্যক কিওয়ার্ড রাখতে হবে ও মাত্রাতিরিক্ত কিওয়ার্ড ব্যবহার (কিওয়ার্ড স্টাফিং) হতে বিরত থাকতে  হবে।

•          কন্টেন্টে H1, H2, H3 ট্যাগগুলো ব্যবহার করতে হবে।

•          যথাসম্ভব তথ্যবহুল ও বিশদ কন্টেন্ট হতে হবে যা আমরা পূর্বেই আলোচনা করেছি।

•          সাব হেডিং এর মধ্যে কিওয়ার্ড রাখতে হবে।

•          Latent Semantic Indexing (LSI) বা প্রতিশব্দমূলক কিওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে।

•          কন্টেন্ট ব্যবহৃত তথ্যসূত্র বা রেফারেন্সের জন্য ইন্টারনাল লিংক ও এক্সটারনাল লিংক ব্যবহার করতে হবে। 

৫। কন্টেন্ট আপডেট 

সময়ের প্রয়োজনে বিভিন্ন সময় কন্টেন্ট আপডেটের প্রয়োজন দেখা দেয়। যেমন আমাদের এই আর্টিকেলের কথাই ধরুন, আজ থেকে ১-২ বছর পর সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাংকিং ফ্যাক্টর পরিবর্তন হতে পারে ফলে সময়ের সাথে সাথে এই কন্টেন্টকে আপডেট করতে হবে। যদি ওয়েবসাইটে এমন কোন কন্টেন্ট থেকে থাকে যার প্রয়োজনীয়তা একেবারেই নিঃশেষ হয়ে গিয়েছে তবে সেই কন্টেন্টকে ডিলিট করে দেওয়া উচিত।   

৬। ইমেজ অপটিমাইজেশন  

বর্তমান সময়ে ইমেজ র‍্যাংক করানো এসইও এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়বস্তু হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইমেজ র‍্যাংক করাতে হলে নিম্নোক্ত ধাপগুলো অনুসরণ করতে হবে-

•          ইমেজের সাইজ যথাসম্ভব ছোট হওয়া ভাল ফলে দ্রুত পেজ লোড হবে।

•          ইমজে অবশ্যই রিলেটেড কিওয়ার্ড দিয়ে অল্টার টেক্স ব্যবহার করতে হবে।

•          ইউনিক ও কপিরাইটমুক্ত ইমেজ হতে হবে।

•          প্রয়োজনে ইমেজের প্রোপার্টিজ থেকে কিওয়ার্ড, ট্যাগ ও কপিরাইট সেট করে দেওয়া ভালো।

ওয়েবসাইট ফ্যাক্টর

১। এক্সেমএল সাইটম্যাপ

আপনার ওয়েবসাইটে কতগুলো পেজ ও পোস্ট আছে তা সাইটম্যাপের মাধ্যমে গুগলে ইনডেক্স করা হয়। সার্চ রেজাল্টে প্রকাশিত হওয়ার জন্য সাইটম্যাপ সার্চ কনসোলে সেট করা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

২। এসএসএল সার্টিফিকেট

কোন ওয়েবসাইটের সিকিউরিটির নিশ্চয়তা প্রদান করে এসএসএল সার্টিফিকেট। বিশেষ করে যেসব ওয়েবসাইটে আর্থিক লেনদেন হয় সেসব ওয়েবসাইটে এসএসএল সার্টিফিকেট আরও বেশি প্রয়োজন। এসএসএল সার্টিফিকেট একটি গুরুত্বপূর্ণ সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর।

৩। মোবাইল ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইট

বর্তমান সময়ে বেশিরভাগ ভিজিটর আসে মোবাইল ফোন হতে। ফলে ওয়েবসাইট মোবাইল, ট্যাব, পিসি সবকিছুতেই যেন রেসপনসিভ হয় সেটি নিশ্চিত করতে হবে। ওয়েবসাইট রেসপসিভ না হলে সার্চ রেজাল্টে বেশ পিছিয়ে পড়বে এটাই স্বাভাবিক।

৪। গুগল সার্চ কনসোল ইনডেক্সিং

গুগলের ওয়েবমাস্টার টুল বা গুগল সার্চ কনসোলে ওয়েবসাইটকে ইনডেক্স করাতে হবে। গুগল সার্চ কনসোলে ওয়েবসাইটকে ইনডেক্স করালে সেখান থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য পাওয়া যাবে ও কোন ইরোর থাকলে তাও দেখতে পাওয়া যাবে। সার্চ কনসোল মূলত আপনার ওয়েবসাইটের উপস্থিতি গুগলকে জানান দেয়।

৫। কোন ব্রোকেন লিংক বা ৪০৪ ইরোর পেজ না রাখা

ওয়েবসাইটে কোন ব্রোকেন লিংক থাকলে সার্চ ইঞ্জিন সেটিকে একটি নেগেটিভ সিগন্যাল হিসেবে নেয়। সেক্ষেত্রে ব্রোকেন লিংকটিকে সার্চ কনসোল থেকে রিমুভ করে বা সেখানে প্রাসঙ্গিক অন্য একটি কন্টেন্ট যুক্ত করে দেয়া যেতে পারে।

ব্যাকলিংক এসইও ফ্যাক্টর

১। লিংকিং ডোমেইন ও লিংকিং পেজের সংখ্যা

কতগুলো ডোমেইন থেকে একটা ওয়েবসাইট লিংক পেয়েছে তাই হচ্ছে লিংকিং ডোমেইনের সংখ্যা। লিংকিং ডোমেইন বেশি হওয়ার অর্থ হচ্ছে ওয়েবসাইটি অন্যদের থেকে অথোরিটি পাচ্ছে। যেটি সার্চ ইঞ্জিনে একটি পজিটিভ র‍্যাংকিং সিগন্যাল। একইভাবে তা বিভিন্ন পেজ লিংকের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

২। লিংকিং পেজের ডোমেইন অথোরিটি

যে ডোমেইন বা পেজ থেকে লিংক পাওয়া যাবে তার ডোমেইন অথোরিটি বেশি হওয়ার অর্থ হচ্ছে বড় ওয়েবসাইট থেকে লিংক অর্জন করা। সুতরাং যেসব ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথোরিটি বেশি তাদের থেকে ব্যাকলিংক গ্রহণ করলে ওয়েবসাইট সার্চ রেজাল্টে অগ্রাধিকার পাবে।

৩। লিংকের প্রাসঙ্গিকতা

যে উৎস থেকে লিংক সংগ্রহ করা হয়েছে সেটি নিশ রিলেটেড কিনা সেটি নির্দেশ করে লিংকের প্রাসঙ্গিকতা। বিভিন্ন নিশ থেকে লিংক নেওয়ার চেয়ে প্রাসঙ্গিক নিশ থেকে লিংক গ্রহণ করলে তা সার্চ রেজাল্টে অধিকতর গুরুত্ব বহন করে। যদি সেই লিংক এংকর টেক্সট থেকে নেওয়া হয় তবে এর গুরুত্ব আরো বেড়ে যায়।

৪। ডু ফলো বনাম নো ফলো লিংক 

সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর এর মধ্যে ডু ফলো লিংক অন্যতম। অপরদিকে নো ফলো লিংক সার্চ রেজাল্টে অগ্রাধিকার পাওয়ার কোন ভূমিকা রাখে কিন্তু ওয়েবসাইটে ভিজিটর আনার ক্ষেত্রে নো ফলো লিংকের গুরুত্ব রয়েছে।

পরিশেষে বলি

সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিং ফ্যাক্টর একটি বিশদ বিষয়। গুগলের প্রায় ২০০ টির বেশি র‍্যাংকিং ফ্যাক্টর রয়েছে। আমরা চেস্টা করেছি মূল বিষয়গুলো তুলে ধরার জন্য। আমরা আশা করি, উপরোক্ত বিষয়গুলো কোন ওয়েবসাইটে প্রয়োগ করলে ওয়েবসাইট অবশ্যই র‍্যাংক করবে।  

ই-কমার্স এসইও করুন ৮ টি ধাপ অনুসরণ করে

ই-কমার্স এসইও করুন ৮ টি ধাপ অনুসরণ করে

ই-কমার্স এসইও করা প্রতিটি ব্যবসায়ের জন্যই অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কেননা আপনি এসইও না করলে ওয়েবসাইটের ভিজিটর হারাবেন ও পাশাপাশি আপনি সেলস থেকে বঞ্চিত হবেন। এই আর্টিকেলটি তাদের জন্য প্রয়োজনীয় যারা নতুন ওয়েবসাইট খুলেছেন কিংবা আপনার ওয়েবসাইটের এখন ভালো ফলফল দেখতে চান।

ই-কমার্স ওয়েবসাইটের জন্য কেন এসইও করা প্রয়োজন 

•         ৪৪% গ্রাহক তাদের অনলাইন শপিং এর প্রক্রিয়া শুরু করে গুগলে সার্চ করার মধ্যমে (nChannel)

•         ৩৭.৫% ট্রাফিক ই-কমার্স ওয়েবসাইটে আসে সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে (SEMRush)

•         ২৩.৬% অর্ডার ই-কমার্স  ওয়েবসাইটে আসে অরগানিক সার্চ ট্রাফিকদের মাধ্যমে (Business Insider)

১ ওয়েবসাইট ডিজাইন

ই-কমার্স এসইও এর ক্ষেত্রে ওয়েবসাইট ডিজাইন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইনটি এমন হতে হবে যেন একজন ক্রেতা যেকোন প্রোডাক্ট সহজেই খুঁজে পায় ও তার সাথে প্রাসঙ্গিক প্রোডাক্টগুলোও দেখতে পারে। ওয়েবসাইট ডিজাইন করার সময় অবশ্যই কয়েকটি পেজ বাধ্যতামূলক রাখতে হবে সেগুলো হচ্ছে- 

ই-কমার্স এসইও

•         হোমপেজ

•         এবাউট পেজ

•         F.A.Q. পেজ

•         ব্লগ আর্টিকেল

•         হেল্প সেন্টার এনসার

•         কন্টাক পেজ

ওয়েবসাইটকে এমনভাবে সাজাবেন না যেন ভিজিটর একটার পর একটা ক্লিক করে তারপর তথ্য খুঁজে পেতে হয়। ওয়েবসাইটকে সাবলিল ও সহজ করে কাস্টমারের সামনে উপস্থিত করুন যেন, সহজেই যে কেউ যেকোন পেজে ভিজিট করতে পারে। সেজন্য কাস্টমার যেন ব্যাক ও ফ্রন্ট পেজে সহজেই ভিজিট করতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় ওয়েবসাইটে লাইভ চ্যাট যুক্ত রাখুন যেন ভিজিটর ওয়েবসাইট থেকে যেকোন প্রয়োজনীয় বিষয়ের তথ্য লাইভ চ্যাট থেকে জেনে নিতে পারে।

২ ই-কমার্স কিওয়ার্ড রিসার্চ 

প্রত্যেকটা এসইও ক্যাম্পেইনের ভিত্তি হচ্ছে কিওয়ার্ড রিসার্চ। কিওয়ার্ড রিসার্চের উপর ভিত্তি করে আপনি ওয়েবসাইটের প্রত্যেকটা বিষয়কে সাজাবেন ও পরবর্তী কর্মপদ্ধতি নির্ধারণ করবেন।

ই-কমার্স এসইও

ছয়টি ধাপে ইকমার্স ওয়েবসাইটের কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হবে

১। ওয়েবসাইটের সবগুলো পেজের একটা লিস্ট করুন।

২। প্রতিটি পেজে কতগুলো কিওয়ার্ড থাকতে পারে এর সম্ভাব্য একটা লিস্ট করুন।

৩। কিওয়ার্ড রিসার্চ টুলগুলো ব্যবহার করুন ও এর মাধ্যমে কিওয়ার্ডের মাসিক সার্চ ভলিউম ও কিওয়ার্ডের কম্পিটিশন বের করুন।

৪। প্রথম অবস্থায় সার্চ ভলিউম বেশি কিন্ত কম্পিটিশন কম এমন কিওয়ার্ড নিয়ে কাজ শুরু করুন।

৫। লং টেইল কিওয়ার্ড ব্যবহার করুন অর্থাৎ যে কিওয়ার্ডগুলো ৪ থেকে ৬ ওয়ার্ডের হয়। লং টেইল কিওয়ার্ডের কম্পিটিশন কম থাকে কিন্তু একুরেট প্রোডাক্ট ভিজিটরদের খুঁজে পেতে সাহায্য করে।

৬। কিওয়ার্ড প্রয়োগের ক্ষেত্রে গুগলের গাইডলাইন মেনে চলুন ও Keyword Golden Ratio- KGR পদ্ধতি মেনে চলুন। 

কিওয়ার্ড রিসার্চ টুল

ই-কমার্স এসইও করার জন্য বেশ কিছু ফ্রি কিওয়ার্ড রিসার্চ টুল আছে যা ব্যবহার করে আপনি সহজেই একটি গুছানো কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে পারবেন। বলাবাহুল্য, অনেক সময় বিভিন্ন টুল থকে ভিন্ন ভিন্ন রেজাল্ট পাবেন। তবে বেস্ট প্র্যাকটিস হচ্ছে আপনি যদি সবগুলোর কম্পিনেশনে সবচেয়ে ভালো কিওয়ার্ড বেছে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে নিম্নের টুলগুলো আপানকে যথেষ্ট সাহায্য করবে-

ই-কমার্স কিওয়ার্ড রিসার্চ

•         “কিওয়ার্ড টুল ডমিনেটর – Keyword Tool Dominator” এটা এমাজনের সার্ভিস।

•         এমাজন ও গুগল সাজেশন তা ছাড়াও অন্যান্য জায়ান্ট ই-কমার্স কোম্পানির কিওয়ার্ড সাজেশন ফলো করতে পারেন।

•         “উবারসাজেস্ট – Ubersuggest” এটা নেইল প্যাটেলের সার্ভিস।

•         “গুগল কিওয়ার্ড প্ল্যানার – Google Keyword Planner” এটা গুগলের সার্ভিস।

•         “ময – MOZ ও এসইএম রাশ – SEM Rush এর মাধ্যমেও কিওয়ার্ড রিসার্চ করা যায়।

৩ ই-কমার্স ওয়েবসাইটের অন পেজ এসইও

একটি ওয়েবসাইটের অন পেজ এসইও ওয়েবসাইটকে সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি করে তোলে ও পাশাপাশি ওয়েবসাইটকে ভিজটরদের কাছে ইউজার ফ্রেন্ডলি করে তোলে। এক কথায় অন পেজ এসইও হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন ও ইউজারদের কাছে গুছিয়ে তথ্য বা প্রোডাক্ট উপস্থাপন করা। ১০ টি ধাপে ওয়েবসাইটের অন পেজ এসইও করতে হবে-

১। কিওয়ার্ড লিস্ট তৈরি করুন যা প্রত্যেকটা প্রোডাক্টের অন পেজ এসইওতে ব্যবহার করতে হবে।

২। অন পেজ এসইও করার জন্য একটি প্লাগিন ব্যবহার করতে পারেন, হতে পারে তা “Yoast SEO” বা “Rank Math” বা “All in one SEO” 

৩। বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে এখন ভয়েস সার্চের পরিমাণ বেড়ে গেছে, বিশেষ করে ই-কমার্স প্রোডাক্টের জন্য প্রচুর ভয়েজ সার্চ হচ্ছে, এসব ভয়েস সার্চ কিওয়ার্ড অন পেজ এসইওতে যুক্ত করতে হবে।

৪। প্রোডাক্ট ডেসক্রিপশন গুছিয়ে লিখতে হবে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা গেছে এসইও এক্সপার্টরা প্রোডাক্ট ডেসক্রিপশনে “Lowest Price” “Best Product” “Free Delivery” বা কোন প্রমোশনাল শব্দ ব্যবহার করেন। ফলে নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড ছাড়াও বেশ কিছু কিওয়ার্ডে ওয়েবসাইট র‍্যাংক করে।

৫। ইমেজ ও ভিডিও পোস্ট করার ক্ষেত্রে ছোট JPG ইমেজ ও MP4 ভিডিও ব্যবহার করুন। আপনার পেজের ইমেজ ও ভিডিও সাইজ যত ছোট হবে তত দ্রুত ওয়েবসাইট লোড হবে।

৬। পোডাক্ট পোস্টের সাথে রিলেটেড প্রোডাক্ট সাজেশন যেন থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে, এতে করে বিক্রয়ের পরিমাণ বাড়ার সম্ভবনা থাকে। সেক্ষত্রে ইন্টারনার লিংকিং যথাযথভাবে করতে হবে।

৭। প্রোডাক্ট টাইটেল ও মেটা ট্যাগ যত সম্ভব ছোট কিন্তু অর্থবোধক হতে হবে।

৮। পেজে অবশ্যই H1, H2, H3 হেডিং ট্যাগ ব্যবহার করতে হবে।

৯। ওয়েবসাইটের যেন ভালো রিভিও থাকে ও সেই রিভিও সার্চ রেজাল্টে প্রকাশিত করলে ভিজিটর ওয়েবসাইটে তুলনামূলক বেশি আসে।

১০। ইউনিক ও মানসম্পন্ন কন্টেন্ট লিখুন ও কন্টেন্টের অন পেজ এসইও করুন। অবশ্যই র‍্যাংক পেতে হলে ডুল্পিকেট কন্টেন্ট পরিহার করতে হবে। বিষয়টি গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট ২০২০ এর মাধ্যমে প্রকাশ করেছে।

৪ টেকনিক্যাল ই-কমার্স এসইও চেকলিস্ট

টেকনিক্যাল ই-কমার্স এসইও হচ্ছে এমন কিছু বিষয় যা সার্চ ইঞ্জিনের চাহিদা মোতাবেক ওয়েবসাইটের কিছু খুঁটিনাটি বিষয় নিশ্চিত করা, অর্থাৎ শতভাগ সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে অবশ্যই টেকনিক্যাল এসইওর বিশয়গুলো নিশ্চিত করতে হবে যেমন –   

১। ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড যত কম হয় ততই ভালো। এতে করে সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক পেতে সুবিধা হবে ও ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট কমে যাবে।

২। ওয়েবসাইটের জন্য আরকটি অত্যাবশ্যক বিষয় হচ্ছে “SSL Certificate” নিশ্চিত করা। বিশেষ করে SSL certificate ছাড়া ই-কমার্স ওয়েবসাইটের র‍্যাংক পাওয়া সম্ভব নয়।

৩। যেহেতু বেশিরভাগ ভিজিটর এখন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আসে ফলে ওয়েবসাইটকে অবশ্যই মোবাইল ফ্রেন্ডলি বা রেসপনসিভ হতে হবে।

৪। গুগল সার্চ কনসোলে কোন ইরর থাকলে তা খুঁজে বের করে দ্রুত সমাধান করতে হবে। পাশাপাশি এও নিশ্চিত হতে হবে, সবগুলো পোস্ট ও পেজ গুগল ইনডেক্স করেছে কিনা। গুগল যদি আপনার ওয়েবসাইটকে ইনডেক্স না করে তবে সার্চ রেজাল্টে আপনার ওয়েবসাইট প্রকাশিত হবে না।

৫। ওয়েবসাইটে কোন ইনভেলিড পেজ আছে কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে। Error 404 পেজ যদি ওয়েবসাইটে থেকে থাকে তবে তা খুঁজে বের করতে হবে এবং পেজটিকে অন্য পেজের সাথে লিংক করে দিতে হবে বা ডিলিট করে দিতে হবে।

৬। Robots.txt ফাইল আপলোড করতে হবে। মূলত এই ফাইলের মাধ্যমে আপনি কোন কোন পেজকে সার্চ ইঞ্জিনকে ইনডেক্স করতে বলবেন তা নির্দেশ করে। 

৭। স্কিমা মার্কআপ ওয়েবসাইটে যুক্ত করতে হবে। কতগুলো HTML ট্যাগ এর সমন্বয়ে স্কিমা মার্কআপ গঠিত হয়, যা দিয়ে সার্চ ইঞ্জিনকে প্রোডাক্ট ডিলেইলস, প্রোডাক্ট রেটিং ও স্টক সম্পর্কে তথ্য উপস্থাপন করবে। গুগল সার্চ কনসোলে প্রোডাক্ট রিপোর্টে স্কিমা মার্কআপের স্ট্যাটাস দেখে নিতে পারবেন। আপনার যখন মোটামুটি সবগুলো কিওয়ার্ড এর চেকলিস্ট হয়ে যাবে তখন সার্চ কনসোলে র‍্যাংকিং চেক করতে পারবেন।  

৫ ইজি চেকআউট পেজ ও পেমেন্ট মেথড

একজন ক্রেতা যখন আপনার ওয়েবসাইট থেকে কিছু কিনতে চায় তখন সে প্রোডাক্টি Add to Cart করার জন্য চেক আউট পেজে চলে যায়। আপনি যদি জটিলভাবে চেকআউট পেজটি তৈরি করেন অর্থাৎ একটি প্রোডাক্ট কেনার জন্য ক্রেতাকে প্রচুর তথ্য দিতে হচ্ছে ও কয়েকটি ধাপ শেষ করতে হচ্ছে, তখন ক্রেতা আপনার চেক আউট পেজ থেকে বেরিয়ে যাবে ও প্রোডাক্ট কেনার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। এর ফলে আপনি আপনি ক্রেতা হারালেন ও ওয়েবসাইটের ভিজিটর হারালেন।

আপনার যততুকু তথ্য দরকার তা আপনি সংগ্রহ করতে পারেন। সেজন্য প্রথম স্টেপে ইনফরমেশন ও দ্বিতীয় স্টেপে ডেলিভারি এড্রেস ও তৃতীয় স্টেপে পেমেন্ট মেথড রাখতে পারেন। প্রথম স্টেপ শেষে যদি ক্রেতা চেক আউট পেজ থেকে বের হয়ে যায় তবুও যেন আপনি তাদের তথ্য পেতে পারেন ও তাদের কাছে পুণরায় মার্কেটিং করতে পারবেন। সুতরাং চেক আউট পেজ যত সম্ভব ইজি ও ইউজার ফ্রেন্ডলি হতে হবে। 

বেশিরভাগ মানুষ যেই পেমেন্ট মেথড পছন্দ করে সেই পেমেন্ট মেথড অবশ্যই রাখেবন। যেমন, আমাদের বেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় পেমেন্ট মেথড হচ্ছে ক্যাশ অন ডেলিভারি ও মোবাইল ব্যাংকিং বা বিকাশ। এই দুটি পেমেন্ট মেথড অবশ্যই চেকআউট পেজে রাখবেন। ই-কমার্স এসইও করার ক্ষেত্রে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

৬ ওয়েবসাইটে FAQ (Frequently Asked Question) পেজ যুক্ত করুন

ওয়েবসাইটে FAQ (Frequently Asked Question) পেজ যুক্ত করে ক্রেতাদের বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। কোন পন্য ক্রয় কররা আগে ক্রেতাদের মনে বিভিন্ন প্রশ্নের উদয় হয়, ফলে প্রাসঙ্গিক এই প্রশ্নগুলোর উত্তর না পেলে ক্রেতারা পন্য ক্রয় করতে আগ্রহী হয় না। FAQ (Frequently Asked Question) পেজ যুক্ত হলে-

ওয়েবসাইটে FAQ (Frequently Asked Question)

– ক্রেতারা তাদের কাঙ্ক্ষিত প্রশ্নের উত্তর পাবে ও সেলসের পরিমাণ বাড়বে।

– বিভন্ন প্রশ্নবোধক কিওয়ার্ড দিয়ে ওয়েবসাইট র‍্যাংক করবে, যেমন How to use, Where to find ইত্যাদি।

সাধারণত যে প্রশ্নগুলো করা হয়ে থাকে সেগুলো হলো –

– আপনাদের রিটার্ন পলিসি কি?

– কোন কোন অঞ্চলে ডেলিভারি দিয়ে থাকেন?

– আপনাদের পেমেন্ট মেথড কি কি?

– অর্ডার দেয়ার পর কি ক্যানসেল করা যাবে?

– কত সময়ের মধ্যে পন্য হাতে পাওয়া যাবে?

– আমি অর্ডার কি করে ট্র্যাক করতে পারি?

– প্রডাক্টের উপকরণ গুলো কি কি?

৭ সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রমোশন করুন

সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রমোশন ছাড়া ই-কমার্স এসইও কখনোই পরিপূর্ন হবে না। একথা কখনোই অস্বীকার করা যাবে না যে ভিজিটরদের একটা বড় অংশ সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ওয়েবসাইটে আসবে। আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট এমনভাবে লিখতে হবে যেন সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশি বেশি শেয়ার হয়। আবার সোশ্যাল মিডিয়াতে এমন কিছু বাটন যুক্ত করতে হবে যেন ওয়েবসাইটে বেশি বেশি ভিজিটর আসে যেমন, Learn More, Shop Now ইত্যাদি।

গুগল সার্চ রেজাল্টেও বিভিন্ন সময় সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্টগুলো র‍্যাংক করে। গুগলের এলগোরিদম অনুযায়ী ফেসবুক ও টুইটার পোস্ট র‍্যাংকিং এর ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পায়।

৮ ওয়েবসাইটের জন্য মানসম্পন্ন ব্যাকলিংক তৈরি করুন

আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর নিয়ে আসার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে মানসম্পন্ন ব্যকলিংক তৈরি করতে হবে। ব্যাকলিংক তৈরি করলে আপনি সার্চ ইঞ্জিনে দ্রুত র‍্যাংক পাবেন ও ওয়েবসাইটে প্রচুর ভিজিটর পাবেন।

•         সেই সব ওয়েবসাইটে ব্যাকলিংক তৈরি করুন যে ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথোরিটি বেশি। সেজন্য MOZ এর সাহায্যে চেক করতে পারবেন ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথোরিটি।

•         ইনফোগ্রাফিক্স, ব্রোকেন লিংক ও গেস্ট পোস্টের মাধ্যমে মানসম্পন্ন ব্যাকলিংক তৈরি করুন।

•         ডিরেকটরি সাবমিশন ও সোশ্যাল বুকমার্কিং এর মাধ্যমেও ভালো ব্যাকলিংক পেতে পারেন।

•         ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে প্রচুর ভিজিটর ওয়েবসাইটে পাবেন ও অটো ব্যাকলিংক পাওয়া যাবে।

•         এক্সপায়ার্ড ভালো ডোমেইন অথোরিটি ওয়েবসাইটে কিনে নিতে পারেন। তারপর সেই ওয়েবসাইটে আপনি নিজের মত করে ব্যাকলিংক তৈরি করতে পারবেন।

পরিশেষে বলি

আমাদের আর্টিকেলে আমরা সংক্ষিপ্তভাবে একটি ই-কমার্স এসইও করার প্রক্রিয়া আলোচনা করেছি। তবে পরিপূর্ণ এসইও করতে হলে অবশ্যই একজন এসইও এক্সপার্টের শরণাপন্ন হতে হবে। বলে রাখা ভালো এসইও করার কোন শর্টকাট নেই, এসইও করতে হলে অন্তত কয়েকমাস ওয়েবসাইটে কাজ করতে হবে। আপনার যেকোন মন্তব্য আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন, সুতরাং আপনার যেকোন প্রশ্ন বা মন্তব্য আমাদের কমেন্ট বক্সে করতে পারেন।  

গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট মে ২০২০, কে জিতলো কে হারলো

গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট মে ২০২০, কে জিতলো কে হারলো

৪ই মে ২০২০ সালে গুগল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের একটি কোর এলগোরিদম আপডেটের ঘোষণা দেয় তাদের অফিসিয়াল টুইটার একাউন্টে। এই কোর এলগোরিদম আপডেটের ফলে বেশ কিছু ওয়েবসাইট ব্যাপকভাবে ভিজিটর হারায় ও সার্চ ইঞ্জিনের র‍্যাংকিং থেকে নিচে নেমে যায়। আবার অপরদিকে বেশ কিছু ওয়েবসাইট রাতারাতি গুগলের প্রথম পেজে স্থান পেয়ে যায়।

কেন র‍্যাংকিং এ এত রদবদল? এই প্রশ্ন এখন সব মার্কেটারদের মুখে মুখে। তাহলে চলুন জেনে নেই গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট মে ২০২০ নিয়ে।


গুগল কোর এলগোরিদম আপডেট কি?

বছরের ভিন্ন ভিন্ন সময় গুগল কিছু আপডেট নিয়ে আসে তার এলগোরিদমে, কিন্তু কিছু আপডেট আছে যার আওতা ব্যাপক ও সার্চ রেজাল্টে বিশাল পরিবর্তন আনে তাকে কোর এলগোরিদম আপডেট বলে। সম্প্রতি যে আপডেটটি প্রকাশিত হলো সেটি একটি কোর এলগোরিদম আপডেট। এর বৈশিষ্ট্য হচ্ছে-

– কোর আপডেট নির্দিষ্ট কোন ক্যাটাগরির ওয়েবসাইট বা নির্দিষ্ট কোন দেশের জন্য প্রযোজ্য নয়। বরং সকল দেশের সকল ভাষার সকল ক্যাটাগরির ওয়েবসাইটের জন্য প্রযোজ্য হবে।  

– কোর আপডেট বাস্তবায়িত হওয়ার সাথে সাথেই অটোমেটিক বিভিন্ন ওয়েবসাইট র‍্যাংক করবে ও অনেকে র‍্যাংক হারাবে।

– পরবর্তীতে র‍্যাংক পেতে হলে কোর আপডেটের গাইডলাইন মেনে চলতে হবে।

কি আছে এই গুগল কোর এলগোরিদম আপডেটে?

প্রাসঙ্গিকভাবে বলে রাখা উচিত এই কোর এলগোরিদম আপডেট ৪ই মে ২০২০ সালে প্রকাশিত হলেও এটি পূর্বে থেকেই গুগলের একটি গাইডলাইন হিসেবে ছিল। উক্ত গাইডলাইনটি গুগল প্রকাশ করেছিল ১লা আগস্ট ২০১৯ সালে। এতএব আমরা বুঝতে পারছি, এই গাইডলাইনটি পূর্বে থেকেই বহাল ছিল কিন্তু এটিকে গুগুল এলগোরিদম হিসেবে নেয়নি সেই মুহূর্তে। মে ২০২০ কোর এলগোরিদম আপডেটের ফলে গুগল এই গাইডলাইনকেই এলগোরিদম হিসেবে ঘোষণা দেয়। চলুন জেনে সেই সেই গাইডলাইনে কি আছে-  

কন্টেন্টকে গুরুত্ব দিতে হবে

যারা কন্টেন্টে গুরুত্ব দিয়েছে তাদেরকেই গুগল পুরস্কৃত করেছে। অর্থাৎ যাদের র‍্যাংক পতন হয়েছে গুগল তাদের পুনরায় র‍্যাংক করার জন্য কন্টন্টে প্রাসঙ্গিকতা চায়। কন্টেন্ট ভালভাবে সাজাতে হলে বেশ কিছু পয়েন্ট তুলে ধরা হয়েছে গুগলের গাইডলাইনে যা এখন গুগল কোর  এলগোরিদম আপডেট।

চারটি ক্যাটাগরিতে গুগল কন্টেন্টকে প্রশ্নবোধক দিয়েছে, সেগুলো হলো

১। কনটেন্টের মান সম্পর্কিত প্রশ্ন

– আপনার কন্টেন্টে পর্যাপ্ত তথ্য, রিসার্চ, রিপোর্ট ও বিশ্লেষন বিদ্যমান কিনা?

– যে বিষয়ের উপর কন্টেন্ট লিখেছেন সে বিষয়টি কি কন্টেন্টে সম্পূর্ণ ও বিশদভাবে তুলে ধরা হয়েছে?

– যেসব ওয়েবসাইট থেকে কন্টেন্ট এর তথ্য নিয়েছেন তাদেরকে কি রেফারেন্স দিয়েছেন নাকি কপি পেস্ট বা আর্টিকেল পুনলিখন (Rewrite) করেছেন?

– আপনার টাইটেল ও মেটা ডেসক্রিপশন কি কন্টেন্টের সারাংশ তুলে ধরতে পেরেছে?

– আপনার টাইটেল বা মেটা ডেসক্রিপশন অতিরঞ্জিত ও হতবাক করার মত করেননি তো?

– আপনার পেজ কি মানুষ বুকমার্ক বা শেয়ার করতে ইচ্ছুক?

– আপনার কন্টেন্ট কি বিভিন্ন এনসাইক্লোপিডিয়া বা বইয়ের মধ্যে রেফারেন্সের পাওয়ার যোগ্যতা রাখে?

২। দক্ষতা বিষয়ক প্রশ্ন

– আপনার কন্টেন্ট কি মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য? এটি কি সুস্পষ্ট তথ্য-প্রমাণ প্রদান করে?

– আপনার ওয়েবসাইট কেউ ভিজিট করলে তিনি কি সকল তথ্যে বিশ্বস্ততার সাথে গ্রহণ করবে?

– কন্টেন্ট লেখক যে বিষয়ে লিখেছে সে বিষয়ে কি তিনি ভাল জ্ঞান রাখেন?

– ওয়েসবাইটের কন্টেন্টকি মিথ্যা বা ভুল তথ্য থেকে মুক্ত?

– আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্টের উপর কি মানুষ আস্থা রাখতে পারবে?

৩। কন্টেন্ট উপস্থাপনা ও প্রস্তুত বিষয়ক প্রশ্ন

– ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট কি বানানগত বা ব্যকরণগত ভুল হতে মুক্ত?

– কন্টেন্ট কি পরিকল্পিতভাবে সাজনো হয়েছে নাকি তাড়াহুড়ো করে লিখা হয়েছে?

– অনেক লেখক অনেক কন্টেন্ট লিখেছেন ওয়েবসাইটে, ফলে ওয়েবসাইটের গুরুত্বপূর্ণ পেজ বিছিন্ন থেকে গেল নাতো?

– কন্টেন্টে কি প্রচুর বিজ্ঞাপন রয়েছে যেন মানুষ কন্টেন্ট পড়তে বিরক্তবোধ করে?   

– কন্টেন্ট কি সকল ডিভাইসে (মোবাইল, ট্যাব) সুন্দরভাবে প্রকাশিত হয় অর্থাৎ রেসপনসিভ?   

৪। তুলনামূলক প্রশ্ন

অন্যান্য পেজের সাথে তুলনা করলে আপনার কন্টেন্ট কি অধিক মুল্যবান?

– আপনার কন্টেন্ট কি ভিজিটরের প্রয়োজন পূর্ণ করতে লিখা হয়েছে নাকি সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক পাওয়ার জন্য লিখা হয়েছে?

আমরা এতক্ষন যে চারটি পয়েন্ট আলোচনা করলাম তা ছিল গুগলের গাইডলাইন যা বর্তমানে এলগোরিদম হিসেবে স্থান পেয়েছে। এই পয়েন্টগুলো আলোচনা করে আমরা বুঝতে পারছি গুগল র‍্যাংকিং এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে কন্টেন্টকে। সার্চ ইঞ্জিন বিশেশজ্ঞরা সেজন্য বলে থাকেন Content is King বা কন্টেন্টই রাজা। জেনে নিন কন্টেন্ট মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে।

ইএটি ক্রাইটেরিয়া (EAT Criteria)

গুগল এলগোরিদম আপডেট মার্চ ২০২০ এর অন্যন্য আরেকটি সংস্করন হলো ইএটি ক্রাইটেরিয়া (EAT Criteria) । ইএটি ক্রাইটেরিয়া (EAT Criteria) এখন র‍্যাংকিং ফ্যাক্টরে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করছে। EAT এর পূর্ণরূপ হচ্ছে E = Expertise A = Authoritativeness and T = Trustworthiness.

Expertise (দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা)

এখানে Expertise (দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা) দ্বারা বুঝানো হচ্ছে যিনি কন্টেন্ট লিখছেন তার উক্ত বিষয়ের উপর কতটুকু দক্ষতা বা অভিজ্ঞতা রয়েছে। অর্থাৎ সামগ্রিকভাবে বিষয়বস্তু সম্পর্কে তার গভীর জ্ঞান আছে কিনা।  

Authoritativeness (প্রামান্যতা)

এখানে Authoritativeness (প্রামান্যতা) বলতে বুঝাচ্ছে আপনি যে বিষয়বস্তুর উপর ওয়েবসাইট তৈরি করেছেন সে বিষয়ের উপর আপনার কর্তৃত্ব বা প্রামান্যতা আছে। আপনি আপনার বিষয়বস্তুর উপর কর্তৃত্ব রাখেন তা প্রমান হয় যখন বড় বড় ওয়েবসাইট আপনাকে রেফারেন্স দেয় (এক্সটারনাল লিংক দেয়) । এটা প্রমান করে আপনার ওয়েসবাইট ঐ বিষয়ের মূল তথ্যদাতা।

Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা)

যখন আপনার ওয়েবসাইট তথ্য প্রদান বা লেনদেনে বিশ্বাসযোগ্যতার প্রমাণ দেবে তখন তাকে Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা) বলা হয়। বিশেষ করে যেসব ওয়েবসাইটে আর্থিক লেনদেন হয় সেসব ওয়েবসাইটের জন্য Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা) সবচেয়ে বেশি প্রয়োজনীয়। বিশেষ করে ই-কমার্স সাইটের জন্য Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা) সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। SSL certificate কোন ওয়েবসাইটে সংযুক্ত থাকা কোন ওয়েবসাইটের Trustworthiness (বিশ্বাসযোগ্যতা) এর প্রমাণ বহন করে।

কে জিতলো কে হারলো?

গুগল কোর  এলগোরিদম আপডেট মে ২০২০ এ সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়েছে যারা তথ্যবহুল কন্টেন্ট নির্ভর ওয়েবসাইট করেছে। পাশাপাশি নতুন বিভিন্ন সাইট যারা দ্রুত র‍্যাংক পেয়েছিল তাদের ভিজিটর কমে গেছে ও র‍্যাংক পতন হয়েছে। সেক্ষত্রে গুগল পুরানো ডোমেইনকেই অগ্রাধিকার দিয়েছে। সেসব সাইট র‍্যাংক হারিয়েছে তাদের মধ্যে লোকাল সাইট, এফিলিয়েট সাইট ও ই-কমার্স সাইট বেশি। অপরদিকে হেলথ, এডুকেশন ও নিউজ সাইটগুলো বেশ লাভবান হয়েছে। যদিও ক্ষেত্রবিশেষে কিছু ব্যাতিক্রম ঘটেছে। বস্তুত যাদের র‍্যাংক পতন হয়েছে তাদের ওয়েবসাইট মানসম্পন্ন নয় এমনটি ভাবা ঠিক নয়। এটা গুগলের এলগোরিদম আপডেটের ফলে র‍্যাংক পতন হয়েছে। কারা জিতলো ও কারা হারলো এই নিয়ে SEM Rush একটি সুন্দর রিপোর্ট করেছে।  

তাহলে এখন কি করা উচিত?

এই দীর্ঘ আলোচনার পর আপনারা বুঝে গেছেন আপনাদের ওয়েবসাইটের কি করা উচিত? সংক্ষেপে পুরা বিষয়টা এক কথায় বললে “আপনার ওয়েবসাইট ও কন্টেন্টকে ভিজিটর ফ্রেন্ডলি করুন অটোমেটিক তা সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক করবে” কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি করতে গিয়ে ভিজিটর ফ্রেন্ডলি না করতে পারলে ওয়েবসাইট র‍্যাংক হারাবে। গুগলের নতুন এলগোরিদম আমাদের ইঙ্গিত দিচ্ছে এখন থেকে সাইট র‍্যাংক করানো হবে আগের চেয়ে আরেকটু দীর্ঘমেয়াদি পক্রিয়া। গুগল কোর  এলগোরিদম আপডেট এর ফলে আরো বুঝা যাচ্ছে ব্ল্যাক হ্যাট এসইও এবার স্থান একদমই পাবে না।

পরিশেষে বলি

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন একটি কয়েক মাসের পক্রিয়া, কোন শর্টকাট ব্যবহার করে ওয়েবসাইটকে র‍্যাংক করানো যায় না। গুগল কোর  এলগোরিদম আপডেট মে ২০২০ এর ফলে যারা দক্ষতা, অভিজ্ঞতা বা পরিশ্রম দিয়ে ওয়েবসাইট সাজিয়েছে তারাই পুরস্কৃত হলো। যাদের র‍্যাংক পতন রয়েছে তাদেরও অনুধাবণ করার সময় এসেছে আরো ভালো কন্টেন্ট তৈরি করে কি করে র‍্যাংক পাওয়া যায়। গুগলের আপডেটেড গাইডলাইনগুলো মেনে চলুন সাইট র‍্যাংক করবেই।

এই বিষয়ে আপনার মতামত বা প্রশ্ন নিঃসংকোচে আমাদের কমেন্ট করে জানান।